মহিলাদের জামায়াতের জন্য মসজিদে যাওয়া মাকরূহে তাহরীমী

মহিলাদের জামায়াতের জন্য মসজিদে যাওয়া মাকরূহে তাহরীমী

 আহলে সুন্নত ওয়াল জামাতের ফতওয়া হলো – ” মহিলাদের পাঁচ ওয়াক্ত, জুমুয়া, তারাবীহ ও ঈদের নামাযসহ যে কোন নামায জামায়াতে আদায় করার উদ্দেশ্যে ঘর থেকে বের হওয়া বা মসজিদে যাওয়া মাকরূহে তাহরীমী।” এ ব্যাপারে হযরত ছাহাবা-ই-কিরাম রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম, তাবেঈন, তাবে তাবেঈন, আয়িম্মায়ে মুজতাহিদীনসহ সকলেই “ ইজমা বা ঐক্যমত “ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। পক্ষান্তরে মহিলাদের ঘরে নামায আদায় মুস্তাহাব এবং পঁচিশগুণ বেশী ফযিলতের কারণ। (আবু দাউদ, আহমদ, দায়লামি, ত্ববারানী, ইবনে হাব্বান, মুয়াত্তা মালিক)।

হাদীস শারীফের কোথাও উল্লেখ নেই যে মহিলাদের জুময়া, ঈদ ও জামায়াতে উপস্থিত হওয়ার জন্য তাগিদ করা হয়েছে।

প্রথম যুগে মহিলাদের মসজিদে যাওয়ার হাকীকত

আজকাল আমাদের দেশের কোন কোন স্থানে মহিলাদের পাঁচ ওয়াক্ত নামাযসহ ঈদ ও জুমার নামায মসজিদে গিয়ে জামায়াতের সাথে আদায় করতে দেখা যায় এবং কেউ কেউ হাদিছ শারিফের দোহাই দিয়ে বলে থাকে যে, “মহিলারা সাইয়্যিদুল মুরছালীন, ইমামুল মুরসালীন হুযুরে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর যামানাতে জামায়াতে নামায আদায় পরতেন, তাই মহিলারা জামায়াতে নামায আদায় করতে পারবে।” তাদের উক্ত বক্তব্যের উত্তর হলো- শরীয়তের এমন অনেক বিষয় রয়েছে, যা সাইয়্যিদুল মুরছালীন, ইমামুল মুরসালীন হুযুরে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর যামানায় ছিলনা কিন্তু সাহাবা-ই-কিরাম (রাঃ)গণের সময় তা উৎপত্তি লাভ করে। যেমন “জুময়ার সানী আযান” এ সানী আযান সাইয়্যিদুল মুরছালীন, ইমামুল মুরসালীন হুযুরে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর সময় ছিলনা। হযরত ওসমান (রাঃ) মুসলমান ও ইসলামের বৃহত্তর স্বার্থে ইজতিহাদ করতঃ উক্ত সানী আযানের প্রথা চালু করেন এবং এর উপর সকল সাহাবা-ই-কিরাম (রাঃ) গণের ইজমা প্রতিষ্ঠিত হয় এবং রসূলে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর যামানায় তারাবীহ নামায দায়েমীভাবে জামায়াতে পড়া হতোনা, তারাবীহ নামাযে কুরআন শরীফ খতম হতোনা। অনুরুপভাবে যদিও প্রথম যুগে ইসলাম ও মুসলমানদের বৃহত্তর স্বার্থে মহিলাদের জামায়াতে উপস্থিত হওয়ার অনুমতি ছিল কিন্তু হযরত ওমর (রাঃ) এর খিলাফতকালে তা নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয় এবং পরবর্তীতে ইমাম, মুজতাহিদগণ মহিলাদের মসজিদে গিয়ে জামায়াতে নামায পড়া মাকরূহে তাহরীমী ফতওয়া দেন এবং এর উপর উম্মতের ইজমা প্রতিস্ষ্ঠিত হয়।

প্রথম যুগে মহিলাদের জামায়াতে উপস্থিত হওয়ার অনুমতি দেওয়ার কারণ সম্পর্কে কিতাবে উল্লেখ আছে-

ইমাম তাহাবী(রঃ) বলেন “মহিলাদের ইসলামের প্রথম যুগে জামায়াতের উপস্থিত হওয়ার অনুমতি প্রদান করার কারণ হলো বেদ্বীনদের সম্মুখে মুসলমানগণের জনসংখ্যা ও জনশক্তি বৃদ্ধি করা।” (মায়ারিফে মাদানিয়াহ, শরহে তিরমিযী)

ইমাম আইনী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেন, “সে যুগ ফিতনা ফাসাদ থেকে সম্পূর্ণ নিরাপদ ছিল। কিন্তু বর্তমানে তা একেবারেই বিপরীত।”

মূলতঃ মহিলাদের মসজিদে জামায়াতে উপস্থিত হওয়ার অনুমতি দেওয়ার কারণ হিসেবে তা’লীম বা ইলম অর্জন করাকেই উল্লেখ করা হয়েছে এবং তা আরও স্পষ্টভাবে প্রমাণিত হয়, বুখারী শারীফের ৯১৫ নং হাদীস শারীফের বর্ণনা দ্বারা। এ হাদীস শারীফে এরশাদ করা হয়, হযরত উম্মে আতিয়া (রাঃ) হতে বর্ণিত- তিনি বলেন, “ঈদের দিন আমাদেরকে বের হওয়ার আদেশ দেওয়া হতো, আমরা কুমারী মেয়েদেরকে, এমনকি ঋতুবর্তী মহিলাদেরকেও ঘর থেকে বের করতাম। অতঃপর পুরুষদের পিছেনে থেকে তাদের তাকবীরের সাথে সাথে তাকবীর পড়তাম এবং তাদের দোয়ার সাথে সাথে আমরাও ঐ দিনের বরকত ও পবিত্রতা লাভের দোয়া করতাম।”

এ হাদিস শরীফে এবং অন্যান্য আরও হাদীস শরীফে স্পষ্টই উল্লেখ রয়েছে যে, ঋতুবর্তী মহিলাগণও ঈদগাহে উপস্থিত হতো। অথচ শরীয়তে ঋতুবর্তী মহিলাদের জন্য নামায সম্পূর্ণ হারাম। সুতরাং তাদের ঈদগাহে বা জামায়াতে উপস্থিত হওয়ার অনুমতি যদি শুধুমাত্র নামাজের জন্য হতো, তবে ঋতুবর্তী মহিলাগণ ঈদগাহে উপস্থিত হতোনা। মূলতঃ প্রথম যুগে নামাজসহ সকল অনুষ্ঠানাদিতে মহিলাদের উপস্থিত হওয়ার মুখ্য উদ্দেশ্য ছিল, তালীম গ্রহন করা। তথা নবী (সা.) এর কাছে নিত্যনতুন আদেশ নিষেধ নাযিল হতো তা যেন পুরুষ মহিলা সকলে সমভাবে জানতে পারে সে কারণে তাদেরও উপস্থিত হওয়ার অনুমতি ছিল।

রসূলে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর যামানায় মহিলাদের ঘরে নামায পড়ার উৎসাহ ও ফজীলত

হাদীস শরীফে এরশাদ করা হয়,

হযরত উম্মে সালমা(রাঃ) হতে বর্ণিত- হুজুর পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, “মহিলাদের জন্য উত্তম মসজিদ হলো, তার ঘরের গোপন প্রকোষ্ঠ।” (সুনানুল কোবরা, আহমদ, মুয়াত্তা ইমাম মালেক)

অন্য হাদীস শরীফে উল্লেখ করা হয়,

হযরত আব্দুল্লাহ্(রাঃ) হতে বর্ণিত- সাইয়্যিদুল মুরছালীন হুযুরে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, “মহিলাদের অন্ধকার কুঠরীর নামাজ আল্লাহ্‌ পাকের নিকট অধিক প্রিয়।” (সুনানুল কোবরা লিল বায়হাকী)

হাদীস শরীফে আরো উল্লেখ করা হয়,

হযরত আব্দুল্লাহ(রাঃ) হতে বর্ণিত- সাইয়্যিদুল মুরছালীন হুযুরে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, “মহিলাদের ঘরে নামাজ পড়া, বারান্দায় নামাজ পড়ার চেয়ে উত্তম এবং সাধারণ ঘরে নামাজ পড়ার চেয়ে গোপন প্রকোষ্ঠে নামাজ পড়া সর্বোত্তম।” (আবূ দাউদ, ৫৭০নং)

কেউ কেউ এ হাদীস শরীফের ব্যাখ্যা করতে গিয়ে বলে থাকে যে, দেখুন এ হাদীস শরীফে মসজিদের উল্লেখ নেই, তাই তুলনাহীনভাবে মসজিদ উত্তম। এটা তাদের সম্পূর্ণ মনগড়া ও বিভ্রান্তিমূলক ব্যাখ্যা। কেননা, তারা এমন একখানা হাদীস শরীফও পেশ করতে পারবে না, যে হাদীস শরীফে মহিলাদের মসজিদে নামাজ পড়া উত্তম বলা হয়েছে। অথচ নিম্নোক্ত হাদীস শরীফসমূহে মহিলাদের মসজিদে নামাজ পড়ার চেয়ে গোপন প্রকোষ্ঠে নামাজ পড়া উত্তম বলা হয়েছে।

হযরত আয়েশা(রাঃ) হতে বর্ণিত- সাইয়্যিদুল মুরছালীন, নবীয়ে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন “কোন মহিলার জন্য তার খাছ ঘরে নামাজ পড়া সাধারণ ঘরে নামাজ পড়ার চেয়ে উত্তম এবং সাধারণ ঘরে নামাজ পড়া বাইরের ঘরে নামাজ পড়ার চেয়ে উত্তম এবং বাইরের ঘরে নামাজ পড়া মসজিদে নামাজ পড়ার চেয়ে উত্তম।” (সুনানুল কোবরা লিল বায়হাকী)

অন্য হাদীস শরীফে উল্লেখ করা হয়,

হযরত উম্মে হুমাইদ(রাঃ) হতে বর্ণিত- তিনি বলেন ইয়া রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, আমরা মহিলারা আপনার সাথে নামাজ পড়তে ইচ্ছুক কিন্তু আমাদের স্বামীরা আমাদেরকে নিষেধ করেন। অতঃপর সাইয়্যিদুল মুরছালীন, নবীয়ে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, “তোমাদের জন্য সাধারণ ঘরে নামাজ পড়ার চেয়ে, খাছ ঘরে নামাজ পড়া উত্তম এবং সাধারণ ঘরে নামাজ পড়া মসজিদে জামায়াতে নামাজ পড়ার চেয়ে সর্বোত্তম।” (সুনানুল কোবরা, জাওহারুন নক্কী)

এ হাদীস শরীফ দ্বারা স্পষ্টই বুঝা যায় যে, সাইয়্যিদুল মুরছালীন হুযুরে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম স্বামী কর্তৃক মহিলাদের মসজিদে যাওয়ার নিষেধকে সমর্থন করেন। যদি তিনি সমর্থন না করতেন, তবে অবশ্য তিনি বলতেন, বাঁধা দেওয়া ঠিক হবে না। এর দ্বারা এটাই প্রমাণিত হয় যে, মহিলাদের মসজিদে যেতে নিষেধ করা নাজায়েজ নয় বরং জায়েজ।

এ প্রসঙ্গে হাদীস শরীফে আরো উল্লেখ করা হয়,

হযরত উম্মে হুমাইদ(রাঃ) হতে বর্ণিত- তিনি সাইয়্যিদুল মুরছালীন, ইমামুল মুরসালীন হুযুরে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর নিকট এসে বললেন, ইয়া রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, আমি আপনার সাথে নামাজ পড়তে অধিক আগ্রহী। অতঃপর সাইয়্যিদুল মুরছালীন, ইমামুল মুরসালীন হুযুরে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, “অবশ্যই আমি জানি তুমি আমার সাথে নামাজ পড়তে ভালবাস বা অধিক আগ্রহী। কিন্তু তোমার, আমার মসজিদে নামাজ পড়ার চেয়ে তোমার গোত্রের মসজিদে নামাজ পড়া উত্তম এবং গোত্রের মসজিদে নামাজ পড়ার চেয়ে হুজরায় নামাজ পড়ার আরও উত্তম এবং হুজরায় নামাজ পড়ার চেয়ে ঘরে নামাজ পড়া সর্বোত্তম।” (আহমদ, ইবনে হাব্বান, তিবরানী)

এ হাদীস শরীফে সাইয়্যিদুল মুরছালীন, ইমামুল মুরসালীন হুযুরে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর মসজিদে নামাজ পড়ার চেয়ে ঘরে নামাজ পড়া উত্তম বলেছেন। যেখানে ঘরে নামাজ পড়া রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর সাথে নামাজ পড়ার চেয়ে উত্তম, সেখানে অন্য মসজিদে নামাজ পড়তে যাওয়া কি করে মজীলতের আশা করা যায়? অথচ আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর সাথে নামায পড়ার চেয়ে উত্তম, সেখানে অন্য মসজিদে নামায পড়তে যাওয়া কি করে ফজীলতের আশা করা যায়? অথচ আল্লাহ পাকের রাসূল হুযুরে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর সাথে এক রাকায়াত নামাজ পড়া লক্ষ রাকায়াত নামাজের চেয়েও সর্বোত্তম। কাজেই যদি জামায়াতের ফজীলতের জন্য মহিলাদের মসজিদে আসার অনুমতি দেওয়া হতো, তবে ঘরে নামাজ পড়া হুযুরে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর সাথে নামাজ পড়ার চেয়ে উত্তম বলা হতোনা। মুলতঃ এর দ্বারা এটাই বুঝা যায় যে, মহিলাদের মসজিদে বা ঈদগাহে যাওয়ার অনুমতি ইলম অর্জনের জন্যই দেওয়া হয়েছিল।

হাদীস শরীফে আরো উল্লেখ রয়েছে যে,

হযরত আবু ওমর শায়বানী(রাঃ) হতে বর্ণিত- তিনি বলেন, তিনি দেখেছেন হযরত আব্দুল্লাহ্(রাঃ)কে জুময়ার দিন মহিলাদেরকে মসজিদেরকে মসজিদ হতে একথা বলে বের করে দিতেন যে, “হে মহিলারা, তোমরা তোমাদের ঘরে ছলে যাও, কারণ নামাজের জন্য তোমাদের ঘরই উত্তম।” (তিবরানী শরীফ)

উপরোক্ত হাদীস শরীফসমূহের আলোচনা থেকে এটা স্পষ্টই প্রমাণিত হয় যে, সাইয়্যিদুল মুরছালীন, ইমামুল মুরসালীন হুযুরে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম শুধু মহিলাদের ঘরে নামাজ পড়ার জন্য কার্যতঃ উৎসাহ প্রদান করেননি বরং ঘরে নামাজ পড়ার বহু ফজীলতও বর্ণনা করেছেন। যেমন হাদীস শরীফে উল্লেখ করা হয়,

“মহিলাদের মসজিদে জামায়াতে নামাজ পড়ার চেয়ে ঘরে একা নামাজ পড়ার ২৫ গুণ বেশী ফজীলত পাওয়া যায়।” (দায়লমী শরীফ ২য় জিঃ পৃঃ ৩৮৯)

হযরত ওমর(রাঃ)-এর নিষেধাজ্ঞা ও হযরত আয়েশা (রাঃ)এর সমর্থন

পর্দার গুরুত্ত ও মহিলাদের ঘরে নামাজ পড়ার উৎসাহ ও ফজিলতপূর্ণ হাদীস শরীফের দিকে লক্ষ্য রেখে আমীরুল মো’মেনীন হযরত ওমর(রাঃ) ইজতেহাদ করতঃ মহিলাদেরকে মসজিদে এসে জামায়াতে নামাজ পড়তে নিষেধ করে দেন। তখন মহিলারা হযরত আয়েশা সিদ্দিকা(রাঃ)-এর নিকট গিয়ে এ ব্যাপারে অভিযোগ করেন, তখন হযরত আয়েশা(রাঃ) বলেন, “যদি হুযুরে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তোমাদের এ অবস্থায় পেতেন, তবে অবশ্য তিনিও তোমাদেরকে মসজিদে যেতে নিষেধ করতেন।” (বুখারী,আবূ দাউদ, মেশকাত)

সতরাং, হযরত ওমর(রাঃ)-এর নিষেধাজ্ঞা ও হযরত আয়েশা সিদ্দিকা(রাঃ)-এর সমর্থন বিরধিতা করে প্রথম যুগের দোহাই দিয়ে মসজিদে গিয়ে জামায়াতে নামাজ পড়া সম্পূর্ণ কোরআন-সুন্নাহ্ বিরোধী। কেননা, কোরআন শরীফে ইরশাদ হয়েছে,

“যারা হযরত ছাহাবা-ই-কিরাম রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমগণকে ইখলাছের সাথে অনুসরণ করবে, তাঁদের প্রতিও আল্লাহ্‌ পাক সন্তুষ্ট এবং তারাও আল্লাহ্‌ পাক-এর প্রতি সন্তুষ্ট।” (সূরা তওবা-১০০)

কোরআন শরীফে আরো ইরশাদ হয়েছে,

“একমাত্র কাফিররাই তাঁদের অর্থাৎ ছাহাবা-ই-কিরাম রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমগণের প্রতি বিদ্বেষ পোষণ করে থাকে।” (সূরা ফাত্হ-২৯)

হাদীস শরীফে উল্লেখ করা হয়,

হুজুর পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন,

“তোমাদের জন্য আমার সুন্নত ও আমার খোলাফায়ে রাশেদীনের সুন্নত অবশ্যই পালনীয়।” (মিশকাত, মিরকাত, আবূ দাউদ, তিরমীযী, আহমদ, ইবনে মাজাহ্)

“আমার প্রত্যেক সাহাবা-ই-কিরাম(রাঃ) তারকা সাদৃশ্য, তাঁদের যে কাউকে তোমরা অনুসরণ করবে, হিদায়েত পেয়ে যাবে” (মিশকাত শরীফ)

সতরাং, খোলাফায়ে রাশেদীন, সাহাবা-ই-কিরাম(রাঃ)গণের হুকুম-আহকাম, বিধি-নিষেধও আমাদের জন্য অবশ্যই অনুসরনীয়। কেননা তাঁদের অনুসরণ করার অর্থই হলো, আল্লাহ্‌ পাক ও তাঁর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে অনুসরণ করা। আর তাঁদের হুকুমকে অস্বীকার করার অর্থই হলো আল্লাহ্‌ পাক ও তাঁর হাবীব হুযুরে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর হুকুমকে অস্বীকার করা। আর বিশেষ করে হযরত ওমর(রাঃ)-এর ফাযায়েল ফজীলত যেটা বলার অপেক্ষাই রাখেনা। যাঁর সম্পর্কে হাদীস শরীফে উল্লেখ করা হয়,

“নবীদের পরে শ্রেষ্ঠ মানুষ হযরত আবূ বকর সিদ্দীক(রাঃ), অতঃপর হযরত ওমর(রাঃ)।”

হাদীস শরীফে আরো উল্লেখ করা হয়,

“যদি আমার পরে কেউ নবী হতো তবে হযরত ওমর(রাঃ)ই নবী হতেন।”

অন্য হাদীস শরীফে বলা হয়,

“স্বয়ং আল্লাহ্‌ পাক হযরত ওমর(রাঃ)-এর জবানে কথা বলেন।”

হুযুরে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আরো বলেন, “শয়তান হযরত ওমর(রাঃ)কে দেখলে, তার মাথা খারাপ হয়ে যেত, কোন রাস্তা দিয়ে পালাবে।”

যে হযরত ওমর(রাঃ)-এর এত ফজীলত ও মর্যাদা, তাঁর পক্ষে কি করে কোরআন শরীফ, হাদীস শরীফের বিরোধিতা করা সম্ভব? এটা কল্পনাও করা যায় নয়া।

“মুজামুল ওয়াজিজ” নামক কিতাবে উল্লেখ আছে যে, হযরত আয়েশা সিদ্দিকা(রাঃ)-এর সমন্ধে হুযুরে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন,

“তোমরা অর্ধেক দ্বীন গ্রহন করবে হযরত আয়েশা(রাঃ) হতে।”

সুতরাং, দ্বীন গ্রহণের ক্ষেত্রে হযরত আয়েশা সিদ্দিকা(রাঃ)-উনার বিধি-নিষেধ মেনে চলা মুসলমান হিসেবে অবশ্যই পালনীয়। আর উনি যে বিষয়ে সমর্থন করেছেন সেটার বিরোধিতা করাও আল্লাহ্‌ পাক ও হুযুরে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের বিরোধিতা করা।

অতএব, যাদেরকে অনুসরণ করা আল্লাহ্‌ পাক ও তাঁর হাবীব হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর নির্দেশ ও তাঁদের সন্তুষ্টি লাভের কারণ, আমাদেরকে তাদেরই অনুসরণ করতে হবে। যদি এটাই হয় তবে মহিলাদের জামায়াতের জন্য মসজিদে যাওয়াকে কি করে জায়িয বলা যেতে পারে? মূলতঃ মহিলাদের জামায়াতকে জায়িয বলার অর্থই হলো-

১) কালামুল্লাহ শরীফ তথা আল্লাহ্‌ পাককে অবজ্ঞা করা।

২) হাদীছ শরীফ তথা হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে অমান্য করা।

৩) উম্মুল মু’মিনীন হযরত আয়েশা ছিদ্দীকা রদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহাকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য বা অবজ্ঞা ও অমান্য করা।

৪) উম্মুল মু’মিনীন ও হযরত ছাহাবা-ই-কিরাম রদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমগণকে অপূর্ণ বলে সাব্যস্ত করা।

৫) নিজেকে হযরত ওমর ইবনুল খত্তাব রদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু, হযরত আয়িশা সিদ্দিকা রদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহাসহ সকল ছাহাবা-ই-কিরাম রদ্দিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম থেকে বেশী জ্ঞানী ও বড় মনে করা।

৬) হযরত ছাহাবা-ই-কিরাম রদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমগণ জায়েযকে নাজায়েয করেছেন বলে দোষারোপ করা।

৭) হযরত ছাহাবা-ই-কিরাম রদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমগণের প্রকাশ্য বিরোধিতা করা ও বিদ্বেষী হওয়া।

৮)শরীয়তের একটি অন্যতম দলীল “ইজমা”কে অস্বীকার করা বা ইজমার বিরোধিতা করা।

উপরোক্ত উল্লেখিত সবগুলোই কুফরীর অন্তর্ভুক্ত। আর শরীয়তের ফয়সালা হলো- যে কুফরী করে সে মুরতাদ হয়ে যায়।

আল্লাহ্‌ পাক বলেন,

“একমাত্র কাফিররাই তাঁদের অর্থাৎ ছাহাবা-ই-কিরাম রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমগণের প্রতি বিদ্বেষ পোষণ করে থাকে।” (সূরা ফাত্হ-২৯)

সতরাং, এটাই বুঝা যাচ্ছে যে, মহিলাদের জামায়াতকে জায়িয বলা হযরত ওমর ইবনুল খত্তাব রদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু এবং হযরত আয়িশা সিদ্দিকা রদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা- উনাদের বিরোধিতা করা যা খাছ ভাবে কুফরীর অন্তর্ভুক্ত।

ইজমায়ে উম্মত

আর পরবর্তীতে ইমাম, মুজতাহিদগণ পর্দার গুরুত্ব মহিলাদের ঘরে নামাজ পড়ার উৎসাহ ও ফজীলতপূর্ণ হাদীস শরীফ ও হযরত ওমর(রাঃ)-এর নিষেধাজ্ঞা ও হযরত আয়েশা সিদ্দিকা(রাঃ)-এর সমর্থনের দৃষ্টিতে ইজতাহিদ করতঃ কেউ বিনা শর্তে মাকরূহ্ তাহরীমী ফতওয়া দেন, আর কেউ শর্ত সাপেক্ষে মাকরূহ্ তাহরীমী ফতওয়া দেন, তবে হানাফী মাযহাবের সকল ইমামগণই বিনাশর্তে মাকরূহ্ তাহরীমী ফতওয়া দেন এবং উক্ত ফতওয়ার উপর উম্মতের ইজমা ঐকমত প্রতিষ্ঠা লাভ করে, বিশেষ করে হানাফী মাযহাবের ইমাম মুজতাহিদদের মধ্যে।

যেমন ইমদালুল আহকাম কিতাবে উল্লেখ করা হয়েছে,

“মহিলাদের মসজিদে গিয়ে জামায়াতের সাথে নামাজ পড়া মাকরূহে তাহরীমী হওয়ার ব্যাপারে উম্মতদের ইজমা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।” (ইমদাদুল আহকাম ১ম জিঃ, পৃঃ ৪২৫)

বিশ্ব বিখ্যাত ও নির্ভরযোগ্য ফিকাহ ও ফতওয়া কিতাব দোররুল মোখতার-এর শরাহ্ গায়াতুল আওতার এর বর্ণনা নিম্নরূপ-

“মহিলাদের পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ, জুময়া ও ঈদের নামাজের জামায়াতে উপস্থিত হওয়া মাকরূহে তাহরীমী, যদিও প্রাপ্তা বয়স্কা ও বৃদ্বা হোক, ফিতনা সৃষ্টি হওয়ার আশংকায়। তাই পরবর্তী ফকীহগণ ফতওয়া দেন যে, মহিলাদের জামায়াতের জন্য বের হওয়া মাকরূহে তাহরীমী। অনুরূপভাবে তাহতাবী কিতাবেও উল্লেখ রয়েছে।”(গায়াতুল আওতার ১ম জিঃ পৃঃ ২৬৩)

তদ্রুপ ফতওয়ায়ে রহীমিয়ায় বিশ্ব বিখ্যাত ও নির্ভরযোগ্য ফিকাহর কিতাব দররুল মোখতার-এর বরাত দিয়ে উল্লেখ করা হয়,

“মকীহগন ফতওয়া দিয়েছেন যে, মহিলাদের জামায়াতের জন্য মসজিদে যাওয়া মাকরূহে তাহরীমী। পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের জামায়াত হোক অথবা ঈদ ও জুময়ার নামাজের জামায়াত হোক। (যেমন দোররুল মোখতার কিতাবে উল্লেখ রয়েছে) মহিলাদের পাঁচ ওয়াক্ত নামাজসহ ঈদ ও জুময়ার নামাজের জামায়াতে উপস্থিত হওয়া মাকরূহে তাহরীমী।” (দোররুল মোখতার, ১ম জিঃ পৃঃ ৩৮৩)

ফতওয়ার কলেবর বৃদ্ধির আশংকায় এখানে মাত্র কয়েকটি কিতাবের ইবারত পেশ করা হলো। এগুলো ছাড়াও নিম্নোত্ত সমস্ত কিতাব সমূহে মহিলাদেরকে জামায়াতের জন্য মসজিদে যাওয়া মাকরূহে তাহরীমী বলে উল্লেখ আছে। যেমনঃ

১)ওমদাতুল কারী শরহে বোখারী, ২)ফায়জুল বারী শরহে বোখারী, ৩)ফাতহুল মুলহিম শরহে মুসলিম, ৪)বযলুল মাযহুদ শরহে আবু দাউদ, ৫)মেরকাত শরহে মিশকাত, ৬)আশয়্যাতুল লোময়াত ৭) মোযাহেরে হক, ৮) দরসে তিরমিযী, ৯) মায়ারিফে মাদানিয়া, ১০) ফতওয়ায়ে হিন্দিয়া, ১১) তাতার খানিয়া, ১২) বাদায়েউস সনায়ে, ১৩) বাহরুর রায়েক, ১৪) আল জাওহারাতুন নাইয়্যারাহ, ১৫) আইনী শরহে হেদায়া, ১৬) শামী, ১৭) রদ্দুল মোহতার, ১৮)মারাকিউল ফালাহ, ১৯) খোলাছাতুল ফতওয়া, ২০) শরহে বেকায়া, ২১) এলাউস সুনান, ২২) হেদায়া, ২৩) আইনুল হেদায়া, ২৪) কুদুরী, ২৫) ফতওয়ায়ে দেওবন্দ, ২৬) আহসানুল ফতওয়া, ২৭) মাদানুল হাকায়েক, ২৮) আহসানুল মাসায়েল, ২৯) কেফায়াতুল ফুফতী, ৩০) ফতওয়ায়ে রহিমিয়া, ৩১) ইমদাদুল আহকাম, ৩২) মাশারিকুল আনওয়ার ও ৩৩) ফতওয়ায়ে নঈমিয়া ইত্যাদি।

পরিশেষ এ বলা যায় যে, মুসলমানগণ ইবাদত তথা নামায, রোযা, হজ্জ, যাকাত ইত্যাদি কেন আদায় করে, নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ্‌ পাক ও তাঁর হাবীবের খাছ রেযামন্দি বা সন্তুষ্টি হাছিল করার জন্য। যদি তাই হয়ে থাকে, তবে তো শরীয়তের ফায়ছালা মুতাবিক মহিলাদের নিজ ঘরে একাকি নামায পড়ার মধ্যে যেরূপ ২৫ গুণ বেশী ফযীলত রয়েছে তদ্রুপ মহান আল্লাহ্‌ পাক ও তাঁর হাবীব হুযুর পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর খাছ সন্তুষ্টিও রয়েছে। আর তার বিপরীত মহিলাদের জামায়াতের জন্য মসজিদ, ঈদগাহে যাওয়া নবী (সা.) এর মতের বিপরীত হওয়ার কারণে তা মহান আল্লাহ্‌ পাক ও তাঁর হাবীব হুযুরে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর অসন্তুষ্টির কারণ।

আল্লাহ্‌ পাক আমাদেরকে প্রত্যেককে সকল শরীয়ত বিরোধী ও বেদয়াত কাজ থেকে হিফাযত করুন এবং কোরআন শরীফ, হাদীস শরীফ, ইজমা ও কিয়াসের উপর পরিপূর্ণ কায়েম থাকার তওফিক দান করুন। (আমিন

 

 

 

One thought on “মহিলাদের জামায়াতের জন্য মসজিদে যাওয়া মাকরূহে তাহরীমী

  1. সৌদিআরবে নামাজ পরে কেন?

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s