নামধারী আহলে হাদীসদের নামের কোনো সহীহ হাদীস নেই

নামধারী আহলেহাদীস দাবীদার ভাইয়েরা দাবী করেন যে, হাদীস শরীফে তাদের প্রসংশা করা হয়েছে।

August 17, 2013 at 5:19pm

প্রশ্ন ::: নামধারী আহলেহাদীস দাবীদার ভাইয়েরা দাবী করেন যে, হাদীস শরীফে তাদের প্রসংশা করা হয়েছে।

সপক্ষে মুসতাদরাকে হাকিম এবং শরফে আসহাবিল হাদীস কিতাবের বরাতে নিম্নের হাদীসটি উল্লেখ করেন-

عن أبي سعيد الخدري ، أنه كان إذا رأى الشباب قال : مرحبا بوصية رسول الله صلى الله عليه وسلم ، أوصانا رسول الله صلى الله عليه وسلم أن نوسع لكم في المجلس ، وأن نفهمكم الحديث . فإنكم خلوفنا ، وأهل الحديث بعدنا

হযরত আবু সাঈদ খুদরী রা. হইতে বর্ণিত, তিনি যখন কোন যুবককে দেখতেন তখন বলতেন- তোমাদের জন্য রাসুল সা. এর অসিয়ত সম্পন্ন ধন্যবাদ, রাসুল সা. আমাদেরকে নির্দেশ দিয়েছেন যে আমরা যেন তোমাদের জন্য মজলিস প্রসস্ত করি এবং তোমাদেরকে যেন হাদীস শিক্ষা দিই। তোমরা আমাদের পরবর্তী অনুসারী এবং আমাদের পরে তোমরা আহলে হাদীস।

….. মুসতাদরাকে হাকেম১/৮৮, শরফে আসহাবে হাদীস ২১

প্রশ্ন হলো এই দাবীটা কতটুকু যথাযথ ?

উত্তর :  আল্লাহ রাব্বুল আলামীন কোরআনে পাকে এরশাদ করেছেন-

يضل به كثيرا و يهدى به كثيرا

অথ্যাত এই কোরআন দ্বারা অনেকেই গোমরা হবে আবার অনেকেই এই কোরআন দ্বারা হেদায়েত প্রাপ্ত হবে।দেখুন- সুরায়ে বাকারাহ/২৬।

বাস্তবিকই যুগে যুগে দেখা যায় সকল বাতিল ও গোমরা পথ ভ্রষ্ট দলগুলোই মানুষকে গোমরা ভ্রষ্ট করার মানসে তাদের সত্য হওয়ার পক্ষে কোরআন হাদীস দারা দলিল প্রমান পেশ করে থাকে। যেমন-

১. গোলাম আহমদ ক্বাদিয়ানী : নবুয়্যতের মিথ্যা দাবীদার, কোরআন দিয়ে তার নবুওয়াত প্রমান করার অপপ্রয়াস-

َمُبَشِّرًا بِرَسُولٍ يَأْتِي مِنْ بَعْدِي اسْمُهُ أَحْمَدُ

এবং মরিয় পুত্র ঈসা বলল হে বনি ইসরাঈল আমি আল্লাহর রাসূল আমি বিদ্যমান থাকা তাওরাতের সত্যতা স্বীকারকারী এবং এমন এক নবীর সুসংবাদদানকারী যিনি আমার পরে আসবেন এবং যার নাম হবে আহমদ।

সুরা আসসাফ/৬।

গোলাম আহমদ দাবী করে এখানে আমি আহমদের কথা বলা হয়েছে। নাউযুবিল্লাহ।

২. এমনিভাবে শিয়া, খারেজী, মুতাযিলা, বাহাই, কদরিয়া, জবরিয়া, কবরপুজারী, মাজারপুজারী ভন্ড, গোমরাহ, পথভ্রষ্ট সকল দলই কোরান দিয়ে তাদের দলকে উন্নিত করতে চায়।

৩. পীর, মাজার, কবর পুজারীরা বলে আল্লাহ আদম আ.কে সেজদা করার জন্য ফেরেস্তাকুলকে নিদ্যেশ দিয়েছেন। আর ইহা সেজদায়ে তাযীমি। তাই আমরা পীরকে কবরে মাজারে সেজদা করি নামাজি সেজদা নয় তাযিমী সেজদা যাহা কোরানের নিদ্যেশ। নাউযুবিল্লাহ।

৪. আমাদের দেশে আরেকটি গোমরাহ বাতিল দল রয়েছে যাহা নামধারী আহলে হাদীসদের বিপরীত তাদের নাম আহলে কোরান। যারা হাদীস-সুন্নাহকে সরাসরি অস্বীকার করে। দাবী করে কোরআন ছাড়া কিছু মানিনা, হাদিস-মাদিস কিছ্চু নাই সবই মানুষের বানানো।

দলিল দেয়-

وَمَا يَنْطِقُ عَنِ الْهَوَى (3) إِنْ هُوَ إِلَّا وَحْيٌ يُوحَى (4)

অথ্যাত- তিনি নবী নিজ থেকে কোন কথা বলেন না যাহা বলে তাহা অহি বা কোরআন।

আননাজম/৩।

৫. এ ক্ষেত্রে নামধারী আহলে হাদীসরাও পিছিয়ে নেই তারাও মিথ্যা বানোয়াট ও অপ প্রচারে হরদম লিপ্ত। আসুন এবার নামধারী আহলে হাদীসদের উল্লেখিত দাবী সম্পর্কে আলোচনা করি।

ক. উল্লেখিত হাদীস খানা শরফ আসহাবুল হাদীস বাদে মুসতাদরাকে হাকীম নামক হাদীসের যে কিতাবের বরাত দেয়া হয়েছে উক্ত কিতাবে পাওয়া যায়নি। [সর্র্ট স্ক্রীনের দাবী রাখে]

খ. শরফ… কিতাবে এ হাদীস খানা উল্লেখ আছে, তবে হাদীস এর কোন কিতাব থেকে এ কিতাবে আনা হয়েছে তার কোন রেফারেন্স বা বরাত দেওয়া হয়নি।

গ. শত শত হাদীসের কিতাবের কোন কিতাবে এমন কোন হাদীস পাওয়া যায়না। ধরে নিলাম হাদীস খানা আছে, তবুও এ হাদীস দ্বারা নামধারী আহলে হাদীসদের প্রসংসা করা হয়েছে এ দাবী খানা সম্পূর্র্ণ অযৌক্তিক ও মিথ্যা- কারণ, হাদীস বিশারদগনের মতে যে খানে আহলে হাদীস শব্দ এসেছে সেখানে এর অথ্য হচ্ছে ‘মুহাদ্দিসীনে কেরাম’।

যেমন আহলে এলেম বললে ওলামায়ে কেরাম, আহলে কোরআন বললে, মুফাস্সিরীনে কেরাম, হাফেজ ও আমেলে কোরআনকে বুঝায়।  সুতরাং আবু খুদরী রা. এর হাদীসের মানে হলো- আমরা যাদেরকে হাদীস শিক্ষা দিবো তারাই আমাদের পরে মুহাদ্দিস হবেন। যেমনটি হয়েছেন- মুহাদ্দিসীনগন সাবাহায়ে কেরামগন থেকে হাদীস নিয়েই মুহাদ্দিস হয়েছেন।

ঘ. নামধারী আহলে হাদীসদের দাবী যদি সত্যি হয় তাহলে, হাদীস অস্বিকারকারী নামধারী আহলে কোরআনরদের দাবী- যে আমাদের প্রসংসা করা হয়েছে হাদীস শরীফে তা সত্যি হবে না কেন?

যেমন- عَنْ أَنَسٍ قَالَ: قَالَ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: ” إِنَّ لِلَّهِ أَهْلِينَ مِنَ النَّاسِ “، فَقِيلَ: مَنْ أَهْلُ اللهِ مِنْهُمْ ؟ قَالَ: ” أَهْلُ الْقُرْآنِ هُمْ أَهْلُ اللهِ وَخَاصَّتُهُ “

আনাস রা. হইতে বণ্যিত রাসূল সা. বলেন- নিশ্চয় মানুষে মধ্যে কতেক মানুষ আল্লাহর পরিবার ভুক্ত [নৈকট্য প্রাপ্ত]।

জিজ্ঞাস করা হলো মানুষের মধ্যে কারা আহলুল্লাহ? রাসুল সা. বললেন “আহলে কোরান” তারা হলো আল্লাহর আহল ও আল্লাহর বিশেষ বান্দা।দেখুন- মুসনাদে আহমদ ১৯/২৯৬

অতএব নামধারী আহলে হাদীসদের যুক্তিঅনুসারে নামধারী আহলে কোরানরাই প্রসংসার দাবীদার। অথচ সকলেই জানি, মুনকারীনে হাদীস নামধারী আহলে কোরআন অবশ্বয় ভ্রষ্ট ও গোমরাহ।

ঙ. শুধুমাত্র মাত্র মুনকারীনে হাদীস [হাদীস অস্বীকারী] ব্যবীত আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের আক্বীদা ধারণকারী সকল মুসলমনই আহলে হাদীস বাং হাদীস ওয়ালা। সুতরাং কোথাও যদি আহলে হাদীসের প্রসংসা করা হয় তাহলে এ প্রসংসা নামধারী আহলে হাদীসদের কেন হবে? এ প্রসংসা হাদীস সুন্নাহ পালনকারী সকল মুসলমানদের জন্যই হবে। নাপা ঔষধ খেলে রোগ ভাল হবে, কিন্তু নাপা লেবেল লাগিয়ে বোতলে চাউলের গুড়া রাখলে ভাল হওয়ার আশা করা ভন্ডামী আর গোমরাহী ছাড়া আর কি? আহলে হাদীস হলেইতো প্রসংসার দাবীদার, আর ব্রিটিশ থেকে অনুমোদিত আহলে হাদীসের নাম সর্বস্য লেবেল লাগিয়ে মুসলমানদের মাঝে দলাদলী, ফেরকাবাজী করলে কি ঐ প্রসংসা কোড়ানো সম্ভব?

শেষ কথা : কোরআনে উল্লেখি আহমদ মানে গোলাম আহমদ ক্বাদীয়ানী নয়, আহমদ হচ্ছে রাসুল সা. এর নাম।

হাদীসে উল্লেখিত আহলে কোরআন মানে নামধারী আহলে কোরআন [মুনকারীনে হাদীস] নয়, বরং হোফফাজে কোরআন ও আমেলে কোরআন।দেখুন-মুসনাদে আহমদ ১৯/২৯৬ “

أهل القرآن” أي: حفظة القرآن الذين يقرؤونه آناء الليل وإطراف النهار العاملون به. “أهل الله” أي: أولياؤه المختصون به.

যেখানেই হাদীসের ব্যখ্যা সমূহে আহলে হাদীস এসেছে সেখা আহলে হাদীস মানে ব্রিটিশদের বানানো নামধারী আহলে হাদীস নয় বরং আহলে হাদীস মানে মুহাদ্দিসীন, হাদীস বিসারদ, হাদীস গবেষক। দেখুন-

মুসনাদে আহমদ : আকসামুল আহাদীস, ১/৬৮,

মিনহাজুততাহক্বীক, ১/১৪৮,

মাসনাদে আবুবকর, ১/২১৪,

মাসনাদে জোবায়ের ইবনুল আওয়াম, ৩/৪১,

মাসনাদে আবি ইসহাক সাআদ ইবনে আবি ওয়াক্কাস, ৩/৫৪,

মাসনাদে আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস, ৪/৩৩৮,

মাসনাদে আবি হোরায়রা, ১৫/৪৫৫,

মাসনাদে আবি সাঈদিনিল খুদরী, ১৭/৭,

মাসনাদে আনাসবিন মালেক, ১৯/৩৫১,

সুনানে তিরমিযি, ১/১৫, ১/১৭, ১/৪১, ১,৭৩, ১/৮৪, ১/৮৬

সুনানে কোবরা লিল নেসাঈ, ১/৪, ১/৬৩২

আল মুয়াত্তা, রাওয়াতে মুহাম্মদ ইবনে হাসান, ১/৯, ১/১২/, ১/১৫

উমদাতুল ক্বারী সরহে বোখারী, ১/৫৬, ১/৮১, ১,১০৩

মিরকাত সরহে মিশকাত, ১/২৩, ১/২৫, ৪/৪৯৩

আকেরটি কথা হলো তথাকথিত আহলে হাদীসদের নামের এই হাদীসটা সম্পূর্ণ জয়ীফ।  তাদের কাছে জয়ীফ হাদীস দলীলের যোগ্য নয়। কিন্তু তাদের নামের যেহেতু আর হাদীস নেই। তাই তারা খুব তাড়াতাড়ি এই হাদীস উপস্থাপন করে। এক্ষেত্রে আর জয়ীফ হাদীসের কথা বলে না। এই হলো তথাকথিত আহলে হাদীসদের ১নাম্বার ধোকাবাজী।

ধন্যবাদান্তে- ক্বওমী সংগ্রাম (http://www.facebook.com/kawmeesangram/posts/1409700839242743)

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s